না:গঞ্জের সোনারগাঁওয়ে এলাকাজুড়ে সন্ত্রাসী কার্যক্রমে ও ভয়ংকর প্রতারক জয়নাল মীর পুলিশের নাম ভাঙ্গিয়ে?

= 1238

                                            ————–তাকে গ্রেফতার করে উপযুক্ত বিচার করার  হক—————-

মুহাম্মদ হুসসাইন বিল্লাহ/না:গঞ্জের সোনারগাঁওয়ে  আরোও এক নুর হোসেনের আবির্ভাব দেখা দিয়েছে।
এলাকাজুড়ে সন্ত্রাসী কার্যক্রম, সংখ্যালঘু উচ্ছেদ, অবৈধ মাদকদ্রব্য ব্যবসা, পুলিশের নাম ভাঙ্গিয়ে এলাকার সাধারণ মানুষের সাথে প্রতারণা, অবৈধ উপায়ে অর্থ উপর্যন সহ নানান কাজে রাষ্ট্রবিরুধী কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন প্রশাসনের নাকের ডগায় বসে।
খোজ নিয়ে জানা যায়: নারায়ণগঞ্জ জেলার সোনারগাঁও থানার নসপুর গ্রামের মৃত্যু     নান্নু মীরের ছেলে জয়নাল মীর(৩৩) একই গ্রামের আমানুল্লাহ এবং তার ছেলে সোহেল কে আসামী করে স্থানীয় একটা ফেক্টরি গত ২২-১২-২০১৫ সালে  একটা মামলা (২৮ নং) দায়ের করে। যার ভিতর আসামী ছিল জয়নাল মীর আমানুল্লাহ ওতার ছেলে সোহেল সহ আরোও অনেকে।
পরে ইয়াহিয়ার সাথে(ইয়াহিয়া আমানুল্লাহ’র মেয়ে জামাই) আলাপ করে মামলা থেকে নাম কেটে দেবে এই মর্মে ইয়াহিয়ার কাছ থেকে দুই লক্ষ বিশ হাজার টাকা নেয় এবং পরবর্তীতে জয়নাল মীর তার নিজের নাম কাটিয়ে আমানুল্লাহ’র নাম রেখে দেয়!!
এতে ইয়াহিয়া পরে টাকা ফেরত চাইলে তাকে মুখ বন্দ রাখতে বলে, অন্যথায় তাকে প্রাণনাশের হুমকি দেয়।
এর পর ইয়াহিয়া থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন  ৫-২-২০১৫ সালে।


এই ঘটনা জানতে পেরে ইয়াহিয়ার বন্ধু শেখ রুহুল আমিন তার সাহায্যে এগিয়ে এলে তাকেও প্রাণনাশের হুমকি দেয়।
আতংকিত রুহুল আমিন পরে থানায় সাধারণ ডায়েরী করেন ২৮-০১-২০১৭ তারিখে।(তার ডায়েরী নং ১৪১বি)
এছাড়াও সংখ্যালঘু পরিবারের উপরও তার শ্যেন দৃষ্টি পড়েছে।
জানা গেছে :একই গ্রামের মৃত্যু হরিদাস পালের ছেলে বুধু তার পরিবার তার ভয়ে ভিটেমাটি ছাড়া হয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে।
এ বিষয়ে আমি সেখানকার ইউপি চেয়ারম্যান এর সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন”লোকটা ভয়ংকর সন্ত্রাসী এবং তার বিরুদ্ধে কেউ কিছু করলেই তাকে এলাকায় থাকতে দেয়না। নানাভাবে অত্যাচার করতে থাকে।
বুধু পরিবার এরই স্বীকার হয়েছে। ২০১৫ সালে  মাদক ব্যবসা পরিচালনার সময় স্থানীয় জনতা তাকে পুলিশের হাতে তুলে দেয়।
তার নামে একাধিক চুরি, ছিনতাই, প্রতারণা সহ আরোও কয়েকটা মামলা রয়েছে। এছাড়া অন্য আরোও একটি নারীঘটিত মামলার আসামী পক্ষের কাছ থেকে প্রায় সাড়ে সাত লাখ টাকা  নেয় এবং বলে যে ওসি সাহেবের মাধ্যমে ডিএনএ রিপোর্ট তার পক্ষে করে দেবে। এভাবে তার কাছ থেকে সাড়ে সাত লক্ষ টাকা আত্মসাৎ করে। বর্তমান সে বাদীপক্ষের লোকদের কাছ থেকে আরোও বড় অঙ্কের টাকা খাওয়ার পায়তারা করছে। এলাকাবাসী এই প্রতারকের হাতে পড়ে অনেকেই নি:শ্ব হয়েছেন।
তাকে গ্রেফতার করে উপযুক্ত বিচার করা হবে এমনটাই দাবী এলাকাবাসীর————–

—————-আসছে………………….






Related News

  • ঘরে বসে টাকা আয়ের কিছু উপায়
  • মেহেরপুরে প্রথম জিরা চাষে সফলতা
  • না:গঞ্জের সোনারগাঁওয়ে এলাকাজুড়ে সন্ত্রাসী কার্যক্রমে ও ভয়ংকর প্রতারক জয়নাল মীর পুলিশের নাম ভাঙ্গিয়ে?
  • উত্তরা টাউন বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে জামায়াতের দরবার বিরুদ্ধে অনিয়ম দুর্নীতি আখড়া?
  • শ্রীপুরে মসলা মিলে ভ্রাম্যমান আদালত-কুঁড়া আর কেমিক্যাল মেশানো গুঁড়ামরিচ হলুদ বাজারে
  • ‘শিমুল হত্যার সব কিছু এড়িয়ে যাচ্ছেন মীরু’
  • ব্যাটারি ছাড়া স্মার্টফোন!
  • ঝালকাঠিতে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে থাই জাতের পেয়ারা
  • 5 Comments to না:গঞ্জের সোনারগাঁওয়ে এলাকাজুড়ে সন্ত্রাসী কার্যক্রমে ও ভয়ংকর প্রতারক জয়নাল মীর পুলিশের নাম ভাঙ্গিয়ে?

    1. ruhul amin says:

      নারায়ণগঞ্জ এলাকাজুড়ে দ্বিতীয় নুর হোসেন জয়নাল মীর

    2. ruhul amin says:

      খোলা চিঠি। সকলকে শেয়ার করার অনুরুধ। এই সকল জনকল্যাণ মুলক নিউজ টাকার অভাবে হয়তো প্রিন্ট মিডিয়াতে আসবেনা তাই শেয়ার করুন বেশিকরে যাতে মাননীয় প্রধান মন্ত্রী পর্যুন্ত পৌছায়
      মাননিয় প্রধান মন্ত্রী
      সোনারগাঁ থানার সাদিপুর ইউনয়ন বাসির পক্ষ থেকে সবিনয় নিবেদন
      আমাদের ইউনিয়নের কিছু অসাধু ও অবৈধ অর্থলোভী সোর্সের দ্বারা নির্যাতনের শিকার হচ্ছে আমাদের এলাকার সাধারণ মানুষ ও এই এলাকার সংখ্যালঘু পরিবার এই সকল বিষয়ে কিছু দিন আগে নারায়ণগঞ্জ পুলিশ সুপারের বরাবর কয়েকটি অভিযোগ করা হয় যার অনুলিপি আপনার দপ্তর সহ মাননীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয় জেলা প্রশাসক সহ স্থানিয় প্রসাসনে দপ্তরে ডাক যোগে প্রেরন করাহয়। তার যের ধরে সোনারগাঁ থানার মিরেরবাগ এলাকার ঘঠনায় আমাকে সহ এই এলাকার অনেককে মামলায় জরানো হয়েছে এই এলাকার অসাধু সোর্সদের সাথে যাদের মন মালিন্য ও যারা তাদের অপকর্মের প্রতিবাদ করেছে কেবল তাদেরকে ইন্ডিকেট করে ১ নং থেকে ৭ নং পর্যুন্ত আসামী করা হয়েছে এখানে কারো সাথে দোকান নিয়ে দন্দ আবার সোর্সদের নিকট পাওনা টাকা ফেরত চাওয়ার কারনেই এই মামলায় জরানো হয়েছে। মিরের বাগে যার বাড়িতে ঘঠনা তাকে আসামী না করে এবং তার বাড়ির আসে পাশের লোকজন আসামী না করে সেই মামলার ১ নং ২ নং ৩ নং ও ৭ নং আসামী কিভাবে আরেক ইউনিয়নের লোকেরা হয়? অতয়েব এই মামলার বিষয়ে সুস্ত তদন্তকরে প্রকৃত অপরাধী দের এজহার ভুক্ত করে নিরপরাধ মানুষকে অব্যাহতি প্রদান করার জন্য আপনার হস্তক্ষেপ কামনা করছি। এবং ভবশ্যতে ভিন্ন ভিন্ন জেলার মামলায় ফাঁসাবে বলে হুমকি প্রদান করেন।
      ভুল ও বেয়াদবি হয়ে থাকলে ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি
      নিবেদক
      রুহুল আমিন
      ০১৭৯৯৯৫৬৯৫৭

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *